Wednesday, April 11, 2018

কারুয়ানার ফিদে ক্যান্ডিডেটস টুর্নামেন্ট বিজয়




(রেডিও বাংলা NY সাপ্তাহিক খবরের কাগজে আমার লেখাটি প্রকাশিত হল আজ ১২ ই এপ্রিল ২০১৮)

আমেরিকার দাবাঙ্গনে বিরাট সুখবর! প্রায় ছিচল্লিশ বছর পর একজন মার্কিন বংশোদ্ভূত দাবাড়ু বিশ্ব দাবার খেতাবি লড়াইয়ে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করবে।আমেরিকা ও ইতালির দ্বৈত নাগরিক গ্র্যান্ডমাস্টার ফাবিয়ানো কারুয়ানা গত ২৭শে মার্চে ফিদে ক্যান্ডিডেটস টুর্নামেন্টের শেষ রাউন্ডে রাশিয়ার আলেক্সান্ডার গ্রিশ্চুক কে পরাজিত করে ১৪ খেলায় ৯ পয়েন্ট নিয়ে শীর্ষস্থান দখল করেন। বিশ্ব চ্যাম্পিয়ন ম্যাগনুস কার্লসেনের বিপক্ষে চ্যালেন্জার নির্ধারণী এই টুর্নামেন্ট টি গত ১০ই মার্চ থেকে ২৮শে মার্চ পর্যন্ত ৮জন খেলোয়াড়ের অংশগ্রহণে রাউন্ড রবিন লীগ পদ্ধতিতে জার্মানির বার্লিন শহরে অনুষ্ঠিত হয়। 

১৯৭২ সালে কিংবদন্তির ববি ফিশারের বিশ্ব চ্যাম্পিয়নশিপ জয়ের পর অনেক কাল ধরে আর কোনো আমেরিকান দাবাড়ু এই সর্বোচ্চ সাফল্য অর্জন করতে পারছেন না. কারুণার সামনে এখন সেই সুযোগ। তবে রুশ বংশোদ্ভূত আমেরিকান গ্র্যান্ডমাস্টার গাটা কামস্কি ফিদে বিশ্ব খেতাবি লড়াই ১৯৯৬ এ চ্যালেন্জার হতে পেরেছিলেন। কিন্তু তিনি লড়াই এ আনাতোলি কার্পভের কাছে হেরে যান। তাছাড়া সেটি ছিলো বিভক্ত দাবা জগতের সময়। তখন অধিকাংশ দাবানুরাগী পিসিএ আয়োজিত ক্যাস্পারভ বনাম আনন্দ ওয়ার্ল্ড চ্যাম্পিয়নশিপ ম্যাচ টিকেই সত্যিকারের খেতাবি লড়াই মনে করতো। সেই দ্বিধান্বিত সময় দাবা জগৎ অনেক আগেই পেরিয়ে এসেছে। এখন অবিভক্ত দাবাঙ্গনে ববি ফিশারের পর কারুয়ানার সামনে সুযোগ এসেছে আরেকজন আমেরিকান হিসেবে বিশ্ব চ্যাম্পিয়ন খেতাব অর্জন করার। 




গত ১০ বছর ধরেই আমেরিকার দাবাঙ্গন অনেক শক্তিশালী হয়ে উঠেছে। এই মুহূর্তে বিশ্বের শীর্ষ ১০ খেলোয়াড়ের মাঝে ৩ জন ই আমেরিকান। কারুয়ানা ২য় , হিকারু নাকামুরা ৬স্ঠ এবং ওয়েসলি সো ৭ম। কারুয়ানার মার্কিন দল ২০১৬ এর চেস অলিম্পিয়াড জয় করে। ২০১৬ এর US ন্যাশনাল চ্যাম্পিয়নশিপ ও জয় করেন কারুয়ানা। ক্যান্ডিডেটস টুর্নামেন্টের পরপর ই জার্মানির বাদেন বাদেন শহরে অনুষ্ঠিত গ্রেনকে ক্লাসিক টূর্ণামেন্টেরও শিরোপা জিতলেন কারুয়ানা, যেখানে ১ম রাউন্ডে তিনি ড্র করেন বর্তমান বিশ্ব চ্যাম্পিয়ন ম্যাগনুস কার্লসেনের সাথে । পরপর এই দুইটি টুর্নামেন্ট জিতে কারুয়ানা তার এত কার্লসেনের মাঝে রেটিং ব্যবধান অনেক কমিয়ে এনেছেন। লাইভ রেটিংয়ে কার্লসেনের ২৮৩৮ এর বিপক্ষে কারুয়ানার রেটিং এখন ২৮১৭। 

মাত্র ৫ বছর বয়সে দাবা খেলা শিখে কারুয়ানা নিউ ইয়র্কে তুখোড় দাবাড়ু হিসেবে বেড়ে উঠেন। কিন্তু ২ বছর বয়সে বাবা মায়ের সাথে ইতালি চলে যান। সেখানেই ১৪ বছর ১১ মাস বয়সে তৎকালীন সর্বকনিষ্ঠ ইতালীয় এবং আমেরিকান হিসেবে গ্র্যান্ডমাস্টার খেতাব লাভ করেন। তার খেলার স্টাইল অত্যন্ত আক্রমণাত্মক। ২০১৪ সালের সিন্কেফিল্ড কাপ চ্যাম্পিয়ন হবার পথে টানা প্রথম ৭টি খেলায় জিতে সবাইকে তাক লাগিয়ে দেন। ওই টুর্নামেন্টে তার রেটিং পারফরমেন্স ছিল অবিশ্বাস্ব ৩১০৩, যা অনেকের মোতে সর্বকালের সেরা টুর্নামেন্ট পারফরমেন্স।  ২ বছর আগে ২০১৬ এর ক্যান্ডিডেটস টুর্নামেন্টের শেষ রাউন্ডে রাশিয়ার সার্গেই কারিয়াকিনের কাছে হেরে গিয়ে অল্পের জন্য বিশ্ব চ্যাম্পিয়নশিপের শিরোপা লড়াই থেকে বঞ্চিত হন। কিন্তু এইবার আর সেই ভুল করেননি। পরিষ্কার ১ পয়েন্ট এগিয়ে থেকে বিশ্ব চ্যাম্পিয়ন মাগনুস কার্লসেনের বিরুদ্ধে চ্যালেঞ্জের হিসেবে মনোনিত হলেন। 

২০১৮ এর ওয়ার্ল্ড চেস চ্যাম্পিয়নশিপ অনুষ্ঠিত হবার কথা নভেম্বরে লন্ডনে। কিন্তু কারুয়ানার এই বিজয়ের পর এখন শোনা যাচ্ছে মার্কিন ধনকুবের রেক্স সিন্কেফিল্ড অনেক বেশি অর্থ পুরস্কার দিয়ে টুর্নামেন্টটি আমেরিকার সেন্ট লুইস, মিসৌরিতে স্থানান্তরিত করার চেষ্টা করছেন। বর্তমানে কারুয়ানা সেন্ট লুইসে বসবাস করছেন যেখানে নিয়মিত সিন্কেফিল্ড কাপ, US ন্যাশনাল চ্যাম্পিয়নশিপের মতো বড় বড় টুর্নামেনটের আয়োজন হয়। 

কারুয়ানার এই সাফল্যের হাত ধরে আমেরিকার দাবাঙ্গন আরো বেশি সক্রিয় হয়ে উঠবে। লন্ডনে হোক আর সেন্ট লুইসে, কারুয়ানা আর কার্লসেনের ১২ গেমের ওয়ার্ল্ড চেস চ্যাম্পিয়নশিপ টাইটেল ফাইটের জন্য আরো ৭ মাস পৃথিবী ব্যাপী দাবাড়ুরা অধীর আগ্রহে অপেক্ষা করবে। আর যদি লড়াইটা আমেরিকার মাটিতেই হয়, তবে আমরা যারা এখানে আছি তারা কি সামনাসামনি খেলাটা দেখার সুযোগ হাতছাড়া করবো?

ক্যান্ডিডেটস টুর্নামেন্টের ফাইনাল স্ট্যান্ডিং:


Monday, March 19, 2018

A Group of Robbers Forcibly Took My Laptop in BART near Hayward

Yesterday I got robbed in broad daylight in BART on the way back from San Francisco to Fremont. I was returning with my son after playing a chess tournament at Mechanics Chess Institute at San Francisco. On the way back to Fremont, the robbery happened just before the train stopped at Hayward station. My son was in the window seat listening to iPad and I was charging my iPhone with a cable attached to my Macbook Pro laptop. Inside the BART compartment there were less than 20 people all together, 5 of them were robbers - all african americans. Those were young guys about 18 to 22 years old I guess. Just when the train started to slow down to stop at Hayward Bart station, which is 4 stops before my home station Fremont, the robbers advanced and stood just beside me. Their leader, I guess because he was the tallest and fattest, first hit in my 2 hands from up-to-down like hammers to loosen my grip on my laptop. There was no pain or surprise. I instantly understood its a robbery case and as the guy started pulling my laptop, I also jumped and put my grip on the laptop. I started shouting that they are hijacking my laptop, help, call police while struggling to keep my grip on the laptop. They also started shouting after me like a scream so that no one can understand what I am saying. The people around must have been shocked but no one came in front, in fear of getting beaten (I suppose). All of them were between 5 feet 9 inch to 6 feet and I assume was ready for fist fight. I slowly stood up from sitting and continued to struggle with the laptop to not loose from my hand. 2 of them then pushed my shoulder and the leader slowly got the laptop away from my hand. He had to do it slowly because otherwise if he would slip the laptop would have hit his own companions. I then grabbed the backside of the jacket of the leader when his fellows started punching me. I was working on reflex and not consciously choosing exactly what to do. My only thing was, they have not right to forcibly take my staff. Due to the small space in the room, they didn't have a clear force to hit me and only 2 hits in either side of my head I could feel - not hard enough to have pain. Also I took some more beating in my body but I didn't realize neither did I care at that time. Finally I left the jacket thinking they might have knives if not guns, and anyway the other passengers are not coming to stop those guys. My intention was to hold them off for long enough that the door closes back trapping them inside. But I am no match in either strength or number to them. And I am worried what my son is thinking seeing his father struggling with a bunch of mugs. After about 30 to 40 seconds (seemed ages to me) the train stopped and the doors opened. So it would be too risky to try anything else alone while they were preparing to run away. In the meantime, I was half towards the other side of the door while holding the laptop, so when 4 of them ran away with the laptop through that door, I ran behind them while screaming to ask people to stop them. But then I was worried that the train may close the door and my son is inside. So I ran back to him and saw another of them running towards my seat. I rushed to him and he ran away without stopping near my son. All these things happened in 30 to 40 seconds although it seemed ages to me. I assume the 5th guy simply didn't have enough space come out of the door and because I was in front of him, so he went back to the other door near my son where he was still sitting. The other possibility is that he saw the iPhone falling down in my sit and also say my son has the iPad. But seeing me rushing towards him, he couldn't have taken the risk to have a one on one fight with me. So he didn't stop and ran away with that door. I rushed behind him a few steps but stopped again because my son is in the train. I then stood in between the door so that it doesn't close and hence the train can't move.

By that time I saw 2 young guys came in front to help me. One guy called 911 and another guy found my wallet 10 feet outside of the BART door in the station floor. I told them to call train driver and to keep the train standing there. I called 911 and they asked me about the description of the robbers. Sufficient to say, despite keeping the train in halt for half and hour, searching it myself and by police, we couldn't find them any more. When I went to station master's cube, he said he saw several of teenagers ran past out of the station. BART police talked to me and even sent 2 cops outside BART to see if they can suspect anyone. But by that time it was too late. They were gone.

My son, despite scared, didn't move from the seat and saved my iPhone that fell down on my seat and also hid the iPad he was using that time. I guess one lesson I learnt from this is that make your electronic gadget publicly visible in transit. I have had another situation 6/7 years back when I was returning from Salesforce, San Francisco at 1 PM. My laptop bag (the laptop inside) was in my hand and I felt asleep for a few seconds. A group of teenagers were getting down at Bay Fair station and one of them grabbed the laptop bag without me knowing. After few seconds when I woke up, I saw I dont have my bag in hand and I quickly found them walking in front of me just outside of the door. I straight away walked to them and snatched back my laptop bag from the guy. They gave a red eye to me but didn't dare to attack.

I have sent an email today asking the police officer whole filed the case with me asking for video footage of the incident. I hope they have been able to capture and identify some of those robbers. Similar incidents have been happening in this area for a while, the most notable one a year back when 40 to 60 teenagers robbed an entire BART train at Oakland. and a man stabbed at Hayward BART station just 3 months back.

Update: I got email response from the police officer. A detective has been assigned to my case who has reviewed the video footage and is working on identifying the suspects.

Amitabh's Reception at Eric's Home for Rickshaw Girl

I recently attended a nice get together at Producer Eric’s house in San Francisco Bay Area for the upcoming movie Rickshaw Girl which will be directed by Amitabh. This will be his second movie direction after Aynabaji. I became a small investor for this film that is focused on women empowerment, paintings for rickshaw in Bangladesh. I read the book couple of weeks back when I decided to invest in it and was pleased to meet the author of the book Mitali Parkins. Amitabh and I studied Masters in Economics at Dhaka University together. As always he was so jolly and cracked lots of jokes before Eric called everyone in the party for some speeches.






Sunday, February 11, 2018

ঢাকা শহরের সুস্বাদু রকমারি বাহারি খাবারের রেস্তোরাঁ

“ঢাকা শহরের আনাচে কানাচে ছড়িয়ে আছে অসংখ্য সুস্বাদু রকমারি বাহারি খাবারের রেস্তোরাঁ।  রাস্তার পাশের ঝাল মুড়ি থেকে শুরু করে পিজ্জা বার্গার প্রত্যেক খাবারই তার স্বাদ দিয়ে জয় করে নিয়েছে ফুডিজদের মন। আজকে জানিয়ে দিব ঢাকার বেশ কিছু জনপ্রিয় খাবার রেস্তোরাঁর খোঁজ খবর যেখানে অন্তত একবার হলেও খাওয়া উচিৎ।

১. বেচারাম দেউরীতে অবস্হিত নান্না বিরিয়ানি এর মোরগ-পোলাও
২. ঝিগাতলার সুনামী রেস্তোরা এর কাচ্চি বিরিয়ানী, গাউছিয়া হোটলের গ্রিল
৩. খিঁলগাও এর ভোলা ভাই বিরিয়ানী এর গরুর চাপ এবং মুক্তা বিরিয়ানী এর গরুর চাপ, খাসীর চাপ এবং ফুল কবুতর
৪. মতিঝিলের ঘরোয়া হোটেল এবং হীরাঝীলের ভূনা খিচুড়ী
৫. হোটেল আল-রাজ্জাকের কাচ্চি+গ্লাসি
৬. লালমাটিয়ার স্বাদ এর তেহারী
৭. নবাবপুর রোডে হোটেল স্টার এর খাসীর লেকুশ, চিংড়ি ,ফালুদা
৮. নয়াপল্টনে হোটেল ভিক্টোরীতে ৭০টি আইটেমের বুফে
৯. হাতিরপুল মোড়ে হেরিটেজ এর শর্মা
১০. শ্যামলী রিং রোডের আল-মাহবুব রেস্তোরার গ্রীল চিকেন
১১. মোহাম্মদপুর জেনেভা/বিহারী ক্যাম্পের গরু ও খাশির চাপ
১২. মোহাম্মদপুর টাউন হল বাজারের সামনের বিহারী ক্যাম্পের “মান্জারের পুরি”
১৩. চকবাজারের শাহ সাহেবের বিরিয়ানী
১৪. মিরপুর-১০-এর শওকতের কাবাব
১৫. নারিন্দার শাহ সাহেবের ঝুনার বিরিয়ানী
১৬. ইংলিশ রোডের মানিকের নাস্তা
১৭. গুলশানের কস্তুরির সরমা
১৮. সুলতান ডাইন মেন্যু সেট।
১৯. সাইন্স-ল্যাবের ছায়ানীড়ের গ্রীল-চিকেন
২০. নাজিরা বাজারের হাজীর বিরিয়ানী
২১. জেলখানা গেটের পাশে হোটেল নিরবের ব্রেন/মগজ ফ্রাই
২২. নয়া বাজারের করিমের বিরিয়ানী
২৩. হাজি বিরিয়ানী এর উল্টা দিকের হানিফের বিরিয়ানী
২৪. লালবাগের ভাটের মসজিদের কাবাব বন
২৫. তারা মসজিদের সামনের সরবত আর লাচ্ছি, চকবাজারের মুরি ভর্তা।
২৬. বংশালের শমসের আলীর ভূনা খিচুড়ী
২৭. খিলগাঁও বাজারের উল্টো পাশে আল রহমানিয়ার গ্রীল চিকেন আর তেহারী
২৮. মতিঝিল সিটি সেন্টারের পিছনের বালুর মাঠের পিছনের মামার খিচুড়ী
২৯. চানখারপুলের নীরব হোটেলের ভুনা গরু আর ভর্তার সাথে ভাত
৩০. ধানমন্ডী লায়লাতির খাসির ভুনা খিচুড়ী
৩১. হোসনী দালান রোডে রাতের বেলার পরটা আর কলিজা ভাজি
৩২. নাজিরা বাজার মোড়ে বিসমিল্লার বটি কাবাব আর গুরদার
৩৩. পুরানা পল্টনে খানা-বাসমতির চাইনিজ প্যাকেজ
৩৪. বনানীর বুমারস রেস্টুরেন্টের বুফে প্যাকেজ
৩৫. ধানমন্ডির কড়াই গোশত এর ইলিশ সস
৩৬. গুলশান ২ এর খাজানার মাটন দম বিরিয়ানী এবং হাইদ্রাবাদী বিরিয়ানী
৩৭. উত্তরার একুশে রেস্তোরার গ্রীল চিকেন
৩৮. ধানমন্ডি/বনানীর স্টার হোটেলের কাচ্চি এবং কাবাব
৩৯. মৌচাকের স্বাদ রেস্তোরার ভাতের সাথে ৩৬ রকমের ভর্তা
৪০. সাইন্স ল্যাবে মালঞ্চ রেস্তোরার কাচ্চি বিরিয়ানী, রেশমী কাবাব
৪১. সুবহানবাগের তেহারী ঘর এর তেহারী-ভুনা খিচুরী
৪২. ভূত এর কাকড়া, সিজলিং, সূপ
৪৩. শর্মা এন পিজ্জার বীফ শর্মা
৪৪. মিরপুর ঝুট পট্টির রাব্বানির চা
৪৫. চকের নূরানি ড্রিংস এর লাচ্ছি
৪৬. চকের বিসমিল্লাহ হোটেলের মোঘলাই পরটা
৪৭. সেন্ট ফ্রান্সিস স্কুলের সামনের মামার আলুর দম।
৪৮. সোহরয়ার্দী কলেজের সামনে জসিমের চটপটি ও ফুচকা।
৪৯. বাংলাবাজারে (সদরঘাট) চৌরঙ্গী হোটেলের সকালের নাস্তা।
৫০. অমূল্য মিষ্টান্ন ভান্ডারের (শাঁখারীবাজার) হালুয়া, পরোটা, সন্দেশ।
৫১. গোপীবাগের খাজা হালিম ও টিটির কাচ্চি
৫২. বাসাবোর হোটেল রাসেলের “শিককাবাব”
৫৩. বায়তুল মোকাররমে অলিম্পিয়া কনফেকশনারীর “চকলেট পেস্টি”
৫৪. কর্নফুলি গার্ডেন সিটির চার তালার “ফুচকা”
৫৫. কাঁটাবন ঢালে অষ্টব্যঞ্জনের বিফ খিচুড়ী
৫৬. পল্টনের (বিজয়নগর পানির ট্যাকিংর পেছনে) নোয়াখালী হোটেলের গরুর কালো ভুনা
৫৭. ডিসেন্ট (মতিঝিল, হাতিরপুল, বনশ্রী, ধানমন্ডি, চক, নওয়াব—এদের প্রচুর শাখা) এর ডেজার্ট আইটেমগুলা ভালো।
৫৮. ব্রাক ভার্সিটির কাছে নন্দনের বিফ এবং মগজ ফ্রাই।
৫৯. গুলশান ২ এর মোড়ে ঝালমুড়ি ওয়ালার টমেটো মাখানো।
৬০. মহাখালি কন্টিনেন্টাল হোটেলের শর্মার সঙ্গে সস’টা দারুণ সেই সাথে চা টাও খুব একটা খারাপ না।
৬১. নিউমার্কেট এরিয়ায় পেয়ারা, আম মাখানোও যথেষ্ট ভাল।
৬২. নিমতলির বাদশাহ মিয়ার চা
৬৩. আগামাসিহ লেনের মাকসুদের খাসসির পায়ার নেহারী
৬৪. বিউটির লেবুর সরবত আর লাচ্ছি,ফালুদা
৬৫. মোহাম্মদপুরের বিহারি ক্যাম্পের মুস্তাকিমের চাপ, গোল্ডেন বিরিয়ানি।
৬৬. ফকরুদ্দিনের কাচ্চি বিরিয়ানি, বোরহানি।
৬৭. বিহারি ক্যাম্পের গরুর মগজ ফ্রাই
৬৮. মিরপুর পানির ট্যাঙ্কের ঝাল ফুচকা।
৬৯. গুলশান ২ এ ব্যাটন রোজ ১০১ বুফেট মেন্যু সল্প মুল্যে।
৭০.খিলগাঁও তালতলা মার্কেটের অপজিট পাশে ফুট পাতের চিকেন ঝাল শিক
৭১.লালবাগ কেল্লার উলটা পাশে হোটেল রয়েল এর চিকেন চাটনি কারি।
৭২. ধানমন্ডি ১৫ নং এর Pasta state.”

Source: Collected from Internet

Saturday, February 03, 2018

Sunday, December 10, 2017

Step by Step: Easy Ways to Purchase Bitcoin, Ethereum and Litecoin

As people are rushing towards crypto currencies now-a-days and specially to buy Bitcoin, they often find it difficult to figure out which web site to use to buy. Sometimes they give up with frustration looking at too many steps involved to get in.  I myself have faced it once earlier but finally got over the hurdles, thanks to the easy interface of Coinbase. So let's see what do you need to do if you buy Bitcoin, Ethereum or Litecoin online.



Step 1: Use your computer's browser to login to Coinbase at https://www.coinbase.com
Step 2: Signup for an account with your email address. Use your smart phone to verify your registration code during the process.
Step 3: You will need to provide your Driver license's front side and reverse side as well as your face image via your computer's web camera to verify your identity documents. The process may take several minutes.
Step 4: Add your bank account or credit card or paypal account to your newly created coinbase account so that you can fund your purchases at Coinbase.
Step 5: Optionally (but highly recommended), enable MFA (multi-factor authentication) for your account. For this you will need to download Google Authenticator app in your smart phone first. Then follow the steps in Coinbase to scan barcode after writing down the 16 digit code. This is to make sure if you loose the mobile, you can recover your account access.
Step 6: You are ready now to buy and cell any of those 3 - Bitcoin, Ethereum, Litecoin. Select the respective wallet to buy those coins.

Coinbase charges 4% transaction fee for each purchase. To avoid this fee, you can use GDAX exchange (owned by the same company as Coinbase) for coin trades using your Coinbase account credentials. But this will involve a few extra steps which are explained in detail at http://bitguru.co.uk/how-to-avoid-coinbase-fees/. I will give the gyst or summary of the steps here.

Step 1: Login to Coinbase and add fund to your USD wallet. For example, if you want to buy 2000 USD worth of bitcoin, then transfer $2000 from your bank account to your USD wallet of Coinbase. This may take 3 to 5 business days.
Step 2: Sign up for GDAX at https://www.gdax.com using your coinbase account.
Step 3: Go to top right menu option Trade and click on Deposit button in the left.
Step 4: This should show you the options for Deposit Funds. Pick the option Coinbase Account and transfer money from Coinbase to GDAX.
Step 5:  Once the transfer is done (usually instantly), you can now use this money to place a Buy Order from GDAX.
Step 6: You can either do a regular market price buy order or limit price order. If you place market order, you will be charged a small transaction fee of 0.3%. However, if you use limit order then you won't be charged any fee at all.
Step 7: While picking what limit price you should choose for your coin to buy, pick a price same or very close to the top price (green color) of the lower half frame to make sure your order gets processed right away.